আন্তর্জাতিক ফিচার্ড পোস্ট

১৯৪৮ সালে বার্মা স্বাধীন হওয়ার পর আরাকান পরাধীন হয়ে পড়ে : এম আলম

বিএনপির তারেক রহমান আন্তর্জাতিক পরিষদের প্রেসিডেন্ট জাহাঙ্গীর এম আলম বলেন, মিয়ানমারের সামরিক জান্তা জাতিগত নিধন চালাচ্ছে। সেখানে মুসলিমদের রক্তে রঞ্জিত হয়ে গেছে। সেখানে শান্তি ফিরিয়ে আনতে অবিলম্বে জাতিসংঘের অধীনে শান্তিরক্ষিবাহিনী নিয়োগ করতে হবে এবং নিরাপদ জোন গড়ে তুলতে হবে।

বিশ্বের শক্তিধর রাষ্ট্রগুলোর মিয়ানমারের প্রতি সমর্থন প্রমাণ করেছে মুসলমানদের পক্ষে কেউ নেই। এজন্য নিজেদের রক্ষায় মুসলমানদেরই ঐক্যবদ্ধ হতে হবে। তিনি অবিলম্বে রোহিঙ্গা মুসলিমদের উপর পরিচালিত গণহত্যা ও নির্যাতন বন্ধ করার আহবান জানিয়েছেন ,

এম আলম বলেন, উগ্র বর্মীয় সেনাবাহিনী, অং সান সু চি এবং সংশ্লিষ্ট সবার বিরুদ্ধে রোহিঙ্গা মুসলিম গণহত্যা ও জাতিগত নির্মূল অভিযান এবং মানবতার বিরুদ্ধে অপরাধের অভিযোগে আন্তর্জাতিক আদালতে বিচার করতে হবে।
 আলম বলেন আরাকান এক সময় স্বীধন রাষ্ট্র ছিল। ১৯৪৮ সালে বার্মা স্বাধীন হওয়ার পর আরাকান পরাধীন হয়ে পড়ে। তাদের উপর মগ দস্যুদের অত্যাচার-নির্যাতন শুরু হয়। তারপরও বার্মা সরকারে রোহিঙ্গারা এমপি ছিলেন। এখন তাদের বাঙালি আখ্যা দিয়ে দেশ থেকে বিতাড়িত করা হচ্ছে। তাদের হত্যা করে লাশের স্তূপ বানিয়ে ফেলা হচ্ছে। সবখানে শুধু রক্ত আর রক্ত। আমরা মুসলিমদের এ রক্ত সহ্য করতে পারছি না। মিয়ানমারের বিরুদ্ধে জিহাদ করা এখন ফরজ হয়ে গেছে।
রোহিঙ্গা নির্যাতনের বিরুদ্ধে জনমত গড়তে চীন, ভারত ও রাশিয়ায় বিশেষ দূত পাঠাতে সরকারের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন এম আলম।
শুধুমাত্র মুসলমান হওয়ার কারণে নিজ দেশে মিয়ানমার জান্তা তাদের নাগরিকদের উপর এমন নির্মমতা, বর্বরতা, খুন-ধর্ষণ, হত্যাযজ্ঞের ইতিহাস পৃথিবীতে নেই।সুচি যে চরম মিথ্যাবাদী তা বক্তব্যে প্রমাণ করেছে। বাংলাদেশে আগত রোহিঙ্গা শরণার্থী প্রসঙ্গে বলেন, তাদের দু:খ দুর্দশা দেখলে যে কোন মানবতা কেঁদে উঠবে। থাকার ঘর নেই, খাদ্য নেই, খোলা আকাশের নিচে, বৃষ্টিতে ভিজে কাকভেজা অবস্থায় তারা অত্যন্ত মানবেতর জীবন-যাপন করছে। মানবিক কারণেই অনতিবিলম্বে সরকার ও সক্ষম সবাইকে তাদের পাশে দাঁড়ানো উচিত। অন্যথায় কুতুপালং, বালুখালী, লেদা ক্যাম্প, শাহপরী দীপসহ অন্যান্য এলাকায় অবস্থানরত শরণার্থীদের মাঝে মানবিক বিপর্যয় ঘটবে। এতে শিশুসহ হাজার হাজার মানুষ রোহিঙ্গা শরণার্থী মৃত্যুবরণ করবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *