রাজনীতি

সুচির স্বীকারোক্তি বাংলাদেশের বড় কূটনৈতিক সফলতা: ইনু

জাসদ সভাপতি ও তথ্যমন্ত্রী হাসানুল হক ইনু বলেছেন, বাংলাদেশে রোহিঙ্গা শরণার্থীদের অবস্থান এবং চলমান সংকটের কথা কার্যত স্বীকার করে নিয়েছেন মিয়ানমারের স্টেট কাউন্সেলর অং সান সুচি। তার এই স্বীকারোক্তি বাংলাদেশের বড় কূটনৈতিক সফলতা। সুচির স্বীকারোক্তির পর এখন আমাদের রোহিঙ্গা ইস্যু কেন্দ্রিক সমস্যা সমাধানে অগ্রসর হওয়া সহজ হবে।   বুধবার জাতীয় প্রেসক্লাবে জাসদ আয়োজিত ‘রোহিঙ্গা শরণার্থী সমস্যা সমাধানে করণীয়’ শীর্ষক এক আলোচনা সভায় সভাপতির বক্তব্যে তিনি এ কথা বলেন।   ইনু বলেন, রোহিঙ্গা সংকট আন্তর্জাতিক সমস্যা। এর সমাধান করতেই হবে। এ নিয়ে কোনো অজুহাত চলবে না। আন্তর্জাতিক মহলও এই সমস্যা সমাধানের পক্ষে কাজ করছে। আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের আহ্বানের পরেও চলমান পরিস্থিতিতে সুচির নেয়া পদক্ষেপসমূহ গ্রহণযোগ্য নয়, তাকে দ্রুত ও বাস্তবভিত্তিক পদক্ষেপ নিতে হবে। আমাদের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সমস্যা সমাধানের লক্ষ্যে কাজ করে যাচ্ছেন।   জাসদ সভাপতি বলেন, বাংলাদেশ ধারাবাহিকভাবে কূটনৈতিক তত্পরতা চালাচ্ছে। মিয়ানমার পূর্বপরিকল্পিতভাবে এ হামলা চালানোর কারণে সমস্যাটা বড় আকার ধারণ করেছে, যার ফলে আরেকটি গণহত্যার ঘটনা ঘটেছে।   রোহিঙ্গা সংকট সমাধানে ত্রিদেশীয় পদক্ষেপ প্রয়োজন উল্লেখ করে তথ্যমন্ত্রী বলেন, বাংলাদেশ, মিয়ানমার ও জাতিসংঘকে একসঙ্গে কাজ করতে হবে। ত্রিদেশীয় আলোচনার মাধ্যমে এ সমস্যার সঠিক সমাধান হবে। অন্যথায় ফাঁক ফোকর দিয়ে রোহিঙ্গা ইস্যুকে এড়িয়ে যাওয়ার সম্ভাবনা থাকবে।   জাসদ সভাপতি বলেন, রোহিঙ্গা ইস্যুতে সারা বিশ্ব যখন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সুনাম করছে তখন বিএনপি এ সরকারের দুর্নাম করে বেড়াচ্ছে। এটা তাদের কূট রাজনীতি, এই ধরনের রাজনীতি তাদের নিত্য-নৈমিত্তিক স্বভাব। হাসানুল হক ইনুর সভাপতিত্বে আলোচনা সভায় অন্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন- জাসদ সাধারণ সম্পাদক শিরীন আখতার এমপি, নিরাপত্তা বিশ্লেষক মে. জে. (অব.) আবদুর রশীদ ও জাতীয় প্রেসক্লাবের সভাপতি শফিকুর রহমান প্রমুখ।  

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *