বাংলাদেশ

‘রোহিঙ্গাদের জন্য নির্মাণ হচ্ছে ২ লাখ আশ্রয়কেন্দ্র’

  সরকার রোহিঙ্গাদের জন্য দুই লাখ আশ্রয়ন্দ্রে, ৫০ হাজার ল্যাট্রিন ও পাঁচটি পুলিশ ক্যাম্প স্থাপনের সিদ্ধান্ত নিয়েছে বলে জানিয়েছেন দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণমন্ত্রী মোফাজ্জল হোসেন চৌধুরী মায়া।   রবিবার সচিবালয়ে রোহিঙ্গা পরিস্থিতি নিয়ে একটি আন্তঃমন্ত্রণালয় বৈঠক শেষে মন্ত্রী সাংবাদিকদের জানান, আমরা কুতুপালংয়ে যেখানে রোহিঙ্গাদের আশ্রয় দেয়া হয়েছে সেখানে পাঁচটি পুলিশ ক্যাম্প স্থাপনের সিদ্ধান্ত নিয়েছি।   তিনি বলেন, সরকার প্রাথমিকভাবে অনুমান করেছিল যে রোহিঙ্গাদের জন্য দেড় লাখ আশ্রয়কেন্দ্র লাগবে। এরই মধ্যে এক লাখ ৩১ হাজার নির্মাণ করা হয়েছে। বাকি আগামী নভেম্বরের মধ্যে নির্মাণ করা হবে।   তিনি জানান, রোহিঙ্গাদের জন্য মোট ৫০ হাজার ল্যাট্রিন বসানো হবে। ইতোমধ্যে ১১ হাজার ল্যাট্রিন বসানো হয়ে গেছে।   তিনি বলেন, সরকার এ এলাকায় দুটি ফায়ার সার্ভিস স্টেশন স্থাপন করবে এবং সৌর প্যানেলের সাহায্যে সড়ক বাতিও লাগানো হবে।   মন্ত্রী বলেন, আমাদের প্রধানমন্ত্রী মানবিক দিক বিবেচনায় রোহিঙ্গাদের আশ্রয় দিয়েছেন এবং আমাদেরকে তাদের সাহায্য করার নির্দেশ দিয়েছেন। আমরা রোহিঙ্গাদের স্বাস্থ্যসেবা, খাদ্য, আবাসন এবং অন্যান্য দৈনন্দিন চাহিদা মেটাতে সর্বাত্মক সাহায্য করছি।   তিনি বলেন, বিশ্ব খাদ্য কর্মসূচি (ডব্লিউডব্লিউএফ), ইউনিসেফ ও একটি তুর্কি এনজিও-ও রোহিঙ্গাদের জন্য ল্যাট্রিন ও অন্যান্য স্থাপনা তৈরি করবে।   মন্ত্রী জানান, বিশ্ব খাদ্য কর্মসূচি সাড়ে পাঁচ লাখ এবং তুর্কি এনজিও ৫০ হাজার রোহিঙ্গার খাদ্য সরবরাহ করছে।   মন্ত্রী জানান, এ পর্যন্ত তিন লাখ রোহিঙ্গার বায়োমেট্রিক পদ্ধতিতে নিবন্ধন সম্পন্ন হয়েছে এবং আগামী ডিসেম্বর নাগাদ সকল রোহিঙ্গার নিবন্ধন প্রক্রিয়া শেষ হবে। মোট ৫০টি বুথের মাধ্যমে এ নিবন্ধন প্রক্রিয়া চলছে বলে জানান তিনি।   এক প্রশ্নের জবাবে মন্ত্রী রোহিঙ্গা আক্রমনে এক বাংলাদেশি নাগরিকের মৃত্যুর বিষয়ে তদন্ত চলছে জানিয়ে বলেন, ইতোমধ্যে এ ঘটনায় সংশ্লিষ্টতার অভিযোগে দুইজনকে গ্রেফতার করা হয়েছে। এ ঘটনায় জড়িতদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দেয়া হবে বলে জানান তিনি।   দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ মন্ত্রণালয়ের সচিব শাহ কামাল ও সংশ্লিষ্ট বিভিন্ন মন্ত্রণালয়ের প্রতিনিধিরা বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন। বাসস  

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *