রাজধানী

ঢাকাবাসীর কী হবে?


যানজটের কারণে ঢাকা আজ এক অসুস্থ নগরী। যানজট সমস্যার সমাধানের জন্য নগরীর বিভিন্ন জায়গায় ফ্লাইওভার নির্মাণ করা হয়েছে। কিন্তু যানজট সমস্যার সমাধানে তেমন অগ্রগতি লক্ষ্য করা যায়নি। যানজট রাজধানী ঢাকার দেড় কোটি মানুষের মেগাসিটিকে স্থবির করে দিচ্ছে। প্রতিদিন যানজটে লাখ মানুষের হাজার হাজার কর্মঘণ্টা নষ্ট হছে। জ্বালানি অপচয় হচ্ছে। দেশের অর্থনৈতিক উন্নয়ন ব্যাহত হচ্ছে। ট্রাফিক আইন না মানা, পরিকল্পনার অভাব, ফুটপাত দখল, প্রাইভেটকারের সংখ্যা বৃদ্ধি পাওয়াও যানজটের অন্যতম প্রধান কারণ বলে মনে করা হয়। যেখানে-সেখানে পার্কিং, ফুটপাত দখল করে দোকান বসানো ইত্যাকার সমস্যা তো বহু পুরনো।   রাজধানীতে যানজটের কারণে বছরে বাণিজ্যিক ক্ষতি ২১ হাজার কোটি টাকার বেশি। প্রতিদিন এর পরিমাণ ৮৩ কোটি। এছাড়া প্রতি কর্মদিবসে নষ্ট হছে ৩২ লাখ কর্মঘণ্টা। সবমিলিয়ে যানজটের কারণে দিনে আর্থিক ক্ষতি প্রায় ১০০ কোটি টাকা। আগামী ২০৩০ সালে ঢাকার জনসংখ্যা হবে ৩০ কোটি। এই প্রেক্ষাপটে যানজট নিরসনে উদ্যোগ নেয়ার সময় এখনই। রাজধানী ঢাকাকে সবার জন্য বসবাসের উপযোগী করতে হলে যথাযথ সুদূরপ্রসারী ও সমন্বিত মহাপরিকল্পনা গ্রহণ ও বাস্তবায়ন জরুরি।   যানজটের কারণে ঢাকার নাগরিক জীবনের কোনো সময়সূচি মেনে চলা সম্ভব হচ্ছে না। রাজধানীর যানজট নাগরিকদের মনোরাজ্যে প্রতিদিনই সৃষ্টি করছে বিরূপ প্রভাব। কেড়ে নিচ্ছে মনের শান্তি। রাজধানীতে প্রতিটি যান্ত্রিক যানবাহনে যে পরিমাণ জ্বালানি তেল বা সিএনজি ব্যবহূত হয়, তার প্রায় অর্ধেকটাই অপচয় ঘটে যানজটের কারণে। অথচ চরম বিরক্তিকর এ সমস্যা থেকে নগরবাসীকে রেহাই দেয়ার তত্পরতা নেই বললেই চলে। রাজধানীর যানজট নিরসনে ট্রাফিক ব্যবস্থাকে গতিশীল করার প্রয়োজন সবচেয়ে বেশি। সবচেয়ে বড় কথা, দেশের সবকিছুতে রাজধানীমুখী যে প্রবণতা রয়েছে তাতেও লাগাম পরাতে হবে। সরকারি-বেসরকারি গুরুত্বপূর্ণ অফিসের বিকেন্দ্রীকরণ করেও ঢাকামুখী হওয়ার প্রবণতা রোধ করা সম্ভব।   ঢাকা শহরের আয়তন অনুযায়ী এখানে সর্বোচ্চ ৩০ লাখ মানুষ বসবাস করতে পারে। অর্থাত্ এই শহরে সর্বোচ্চ ৩০ লাখ মানুষকে নাগরিক সুবিধা দেয়া সম্ভব। নগর পরিকল্পনাবিদরা বলছেন, ২০৩০ সালে রাজধানীর জনসংখ্যা হবে দুই কোটি। জাতিসংঘের সর্বশেষ রিপোর্ট অনুযায়ী, বর্তমানে ঢাকায় লোকসংখ্যা এক কোটি ৩০ লাখ। ঢাকায় জনসংখ্যা বৃদ্ধির হার ছয় শতাংশ। বিশ্বব্যাংকের মতে, রাজধানীর বর্তমান পরিস্থিতিতে যানজট নিরসন অসম্ভব। তাহলে ঢাকাবাসীর কী হবে?

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *