বাংলাদেশ

‘জলবায়ু পরিবর্তন ও বৈশ্বিক উষ্ণায়ন একটি বড় সমস্যা’

  ‘বাংলাদেশের সামনে জলবায়ু পরিবর্তন ও বৈশ্বিক উষ্ণায়ন একটি বড় সমস্যা। পৃথিবীর তাপমাত্রা বৃদ্ধি পাঁচ ডিগ্রি মধ্যে সীমাবদ্ধ রাখার অঙ্গিকার করে আজ অনেক দেশ প্যারিস জলবায়ু চুক্তি ভঙ্গ করে চলেছে। এক বছরেই পৃথিবীর তাপমাত্রা এক ডিগ্রি বেড়ে গেছে।’    সোমবার সকালে জাতীয় প্রেসক্লাবে জার্মানিতে অনুষ্ঠেয় জলবায়ু সম্পর্কিত কনফারেন্স অব পার্টিজ-কপ-২৩ কে সামনে রেখে এক সেমিনারে বক্তারা এসব কথা বলেন।দেশের ১০ সংগঠনের সমন্বয়ে গঠিত কোস্টাল এসোসিয়েশন ফর বাংলাদেশ সোস্যাল ট্রান্সফরমেশন ট্রাস্ট (কোস্ট) কনফারেন্স অব পার্টিজ-কপ-২৩ কে সামনে রেখে বাংলাদেশে পক্ষ থেকে এই সেমিনারের আয়োজন করা হয়।    সেমিনারে সভাপতিত্ব করেন বিশিষ্ট অর্থনীতিবিদ ড. খলিকুজ্জামান আহমদ। প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বন ও পরিবেশ বিষয়ক সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপতি ড. হাছান মাহমুদ। সেমিনারে বক্তব্য রাখেন বিশিষ্ট পরিবেশবিদ ড. আতিক রহমান, পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মহাপরিচালক রাশেদুজ্জামান, কোস্টের নির্বাহী পরিচালক রিয়াজুল করিম চৌধুরী, পরিবেশ সাংবাদিক নেতা কামরুল ইসলাম চৌধুরী ও সালাউদ্দিন বাবলু প্রমুখ। সেমিনারে মুল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন ইকুইটিবিডি’র নির্বাহী কর্মকর্তা সৈয়দ আমিনুল হক।    সেমিনারে ড. হাছান মাহমুদ বলেন, আগামী দুই বছরের মধ্যে পৃথিবীর তাপমাত্রা আরো দুই ডিগ্রি বেড়ে গেলে জলবায়ুর পরিবর্তনে পৃথিবীব্যাপী আরো বড় বিপর্যয় নেমে আসতে পারে।    তিনি বলেন, পৃথিবীর সব দেশেই রাষ্ট্রের ক্ষমতাকে শিল্পপতিরা নিয়ন্ত্রণ করে থাকে। তাই তারা জলবায়ু তহবিলে তাদের প্রতিশ্রুত অর্থ দিচ্ছে না। বাংলাদেশ একটি প্রজেক্ট পেয়ে অর্থাভাবে কাজ করতে পারেনি বলে তিনি মন্তব্য করেন। বাংলাদেশের পক্ষে আসন্ন কপ-২৩ সম্মেলনে প্রস্তাবনা তৈরি করে উপস্থাপন করার জন্য নাগরিক সমাজের প্রতি তিনি আহ্বান জানান।   জার্মানীতে অনুষ্ঠেয় আসন্ন কপ-২৩ সম্মেলনে বাংলাদেশ থেকে ২৯ সদস্য বিশিষ্ট একটি প্রতিনিধি দল যোগ দেবে। আগামী ৬ থেকে ১৭ নভেম্বর কপ-২৩ অনুষ্ঠিত হবে। বাসস  

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *