লাইফস্টাইল

চাকরির ইন্টারভিউতে আদবকেতা


পাবলিক পরীক্ষায় ফেল করলে আবার তা দেওয়া যায়। কিন্তু ইন্টারভিউতে অকৃতকার্য হলে তা আবার দেওয়ার সুযোগ থাকে না। স্মার্ট ও যোগ্যদেরও ইন্টারভিউয়ের জন্য প্রস্তুতি নিতে হয়। ইন্টারভিউয়ের পূর্বে সঠিক প্রস্তুতি নেওয়ার কোনো বিকল্প নেই।   ইন্টারভিউয়ের জন্য কিছু প্রস্তুতি খুবই কাজে আসে। এবার এই সব প্রস্তুতি নিয়েই আলোচনা।   ১. আপনার দাড়ানোর ভঙ্গি, চোখে চোখ রেখে কথা বলা এবং আপনার ব্যক্তিত্ব বিষয়ক বিভিন্ন বিষয়ে অনুশীলন করুন। এই বিষয়গুলোই হবে ইন্টারভিউয়ে আপনাকে মাপার মাপকাঠি এবং আপনি আপনার ইন্টারভিউ যাতে তাড়াতাড়ি শেষ করতে পারেন সে বিষয়েও আপনাকে সহযোগিতা করবে এই বিষয়টি।   ২. আপনি সব সময় যে পোশাক ব্যবহার করেন ইন্টারভিউয়ের জন্য তা মোটেই উপযোগী নয়। যেখানে আপনি যোগদান করতে যাচ্ছেন সেখানে কেমন পোশাক হওয়া উচিত তা আপনাকে আগে থেকেই জেনে নিতে হবে। আপনি কোন পদে আবেদন করবেন  সে অনুযায়ী আপনাকে পোশাক পরতে হবে।   ৩. ইন্টারভিউতে আপনাকে শুরু থেকেই বিভিন্ন তথ্য দিতে থাকবে। সেগুলো যদি আপনি মনোযোগ দিয়ে না শুনেন তা হলে আপনি অনেক কিছুর সঠিক উত্তর দিতে পারবেন না। দক্ষতা প্রমাণের এটা একটা ভালো সুযোগ যে আপনি মনোযোগ দিয়ে শুনছেন এবং তার যথাযথ উত্তর দিচ্ছেন। মনে রাখবেন ইন্টারভিউয়ের প্রতি আপনাকে অনেক মনোযোগ দিতে হবে।   ৪. অনেকেই ইন্টারভিউতে একটা ভুল করে থাকেন, তারা  মনে করেন যা জানা আছে তা তো বলবই কিছু কথা ধারণা থেকেও বলব। এমন সিদ্ধান্তই আপনাকে বিপদে ফেলবে। ইন্টারভিউতে না জানা প্রশ্নের জবাব দেওয়া চেষ্টাও করা উচিত নয়। এতে আপনার চাকরি পাবার সম্ভাবনা অনেক কমে যাবে। সার্কুলারে উল্লিখিত চাকরির ধরন দেখে সে অনুযায়ী আপনি প্রস্তুতি নিতে পারেন।   ৫. চাকরি একটি পেশাদার বিষয়। আর এই চাকরিতে আপনাকে নিয়োগ দেওয়ার পূর্বে আপনার যোগ্যতাকে যাচাই করতেই ইন্টারভিউ নেওয়া হয়। ইন্টারভিউতে আপনার ব্যক্তিগত কথাবার্তা ও বন্ধুত্ব এড়িয়ে চলতে হবে। এখানে আপনার সাধ্যমতো আপনি কতোটা যোগ্য তা বর্ণনার মাধ্যমে প্রমাণ করতে হবে। আপনাকে মনে রাখতে হবে যে আপনি অন্য কেউ নন আপনি একজন চাকরিপ্রার্থী।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *