বিনোদন

গল্পটা এমন না হলেও তো পারতো!

  ফেয়ার এন্ড হ্যান্ডসাম হিরো হিসেবে যারা ইরফান সাজ্জাদকে চিনেন, টিভি বা ল্যাপটপের সামনে বসে শুরুতে একটু খটকা খাবেন, মনিরা মিঠুকে যারা নাটক-টেলিফিল্মে কাঠখোট্টা চরিত্রে বহুবার দেখেছেন তারাও চমকে যাবেন। রেডিও-টিভিতে বা মঞ্চে ননস্টপ বকবক করা ইভানকে চিনতেও বেশ কষ্টই হবে।   অন্যদিকে সাফা কবিরকে সেই আগের চরিত্রে খুঁজে পাবেন না, অনেকটা ম্যাচিউরড গ্রাম্য চরিত্র হাজির করা হয়েছে তাকে। সবাইকে একসঙ্গে হাজির করিয়েছেন যে নির্মাতা, তিনি মাবরুর রশিদ বান্নাহ।   কথাগুলো সম্প্রতি প্রচারিত টেলিফিল্ম ‘আমাদের গল্পটা এমনও হতে পারতো’র অভিনয় শিল্পীদের নিয়ে। চরিত্রের মাঝে হারিয়ে যাওয়া শিল্পীদের সুনিপূন অভিনয়ে ইতোমধ্যে দর্শক আলোচনা-প্রসংশায় জায়গা করে নিয়েছেন তারা।   টেলিছবিটির গল্পটা কিন্তু খুবই সাদামাটা, মধ্যবিত্তের টিকে থাকা আর ভেতরকার গল্পকে তুলে ধরা হয়েছে অসাধারণ ভঙ্গিতে, কাজটি বেশ ভালমতোই করেছেন নির্মাতা বান্নাহ। একটি চাকরি পেতে কি পরিমাণ ধকল সহ্য করতে হয়, কি পরিমাণ সংগ্রাম করতে হয় তা মোটামুটি সবারই জানি। বাড়িতে অসুস্থ মা, ডিগ্রি পাশ করা বেকার জাহিদ ঢাকায় গিয়ে চাকরির চেষ্টা করেন। কিন্তু চাকরি কী এতো সহজ! না, পাওয়া হলো না চাকরি। বেঁচে থাকার তাগিদে রাত জেগে দেয়ালে দেয়ালে পোস্টার সাঁটান, গলা ধাক্কাও খেতে হয়েছে। এরপরও চাকরি হয় না কোথাও। হতাশায় ক্ষুব্ধ হয়ে একটা ইন্টারভিউ বোর্ডে দাঁড়িয়ে বলে ফেললেন মধ্যবিত্তের ইতিকথা, টিকে থাকার সংগ্রাম আর টানাপোড়েনের গল্প। সেই চাকরিটা পেয়েছিলেন জাহিদ, ততক্ষণে আশার নোঙর ভেঙে খানখান। যে চাকরির টাকা দিয়ে মায়ের চিকিৎসা করাতে চেয়েছিলেন সেই মায়ের মৃত্যুর পর চাকরির চিঠি হাতে আসে। অর্থের অভাবে মারা যান জাহিদের মা।   জাহিদের চরিত্রে অভিনয় করেছেন ইরফান। তার মায়ের চরিত্রে অভিনয় করেছেন মনিরা মিঠু, গ্রামে বেড়ে ওঠা প্রেমিকার চরিত্রে সাফা কবির। একমাত্র বন্ধুর ভূমিকায় অসাধারণ অভিনয় করেছেন আরজে-উপস্থাপক হিসেবে পরিচিত ইভান সাইর। ইরফানের বাবা চরিত্রে ছিলেন গোলাম রব্বানী মিন্টু।   ‘আমাদের গল্পটা এমনও হতে পারতো’ দেখার পর নির্মাতার সঙ্গে কথা হলো। মানবিকতার আবেদন সমৃদ্ধ গল্প দেখে দর্শক অনুভূতি থেকে বলা হয়েছিল, গল্পটা এমন না হলেও তো পারতো। বান্নাহ বলেন, ‘গল্পটা সত্যিই আমাদের, অন্তত তা বুঝিয়ে দিয়েছে দর্শক-ভক্তদের ভালবাসা। ভাল কাজ করার অনুপ্রেরণা পেলাম।’

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *